বাণিজ্য সময় দেশের গড় মূল্যস্ফীতির বৃদ্ধি, কমেছে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ

২২-০১-২০১৮, ১১:৩৯

হরিপদ সাহা

fb tw
গত ছয় মাসে দেশের গড় মুল্যস্ফীতি বৃদ্ধি পেয়েছে, ঘাটতি বেড়েছে চলতি হিসাবের ভারসাম্যে এবং কমেছে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদও। তাই সামনের মুদ্রানীতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে এসব বিষয় সমন্বয় করার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, মুদ্রানীতিতে কমিয়ে আনতে হবে ব্যংকগুলোর ঋণ ও আমানতের অনুপাত। অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা বলছেন, উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনে পর্যাপ্ত বেসরকারি বিনিয়োগ প্রয়োজন, ঋণ প্রবাহ আরো উদার ও সহজ করে মুদ্রানীতি প্রণয়ন করা উচিৎ।
জুলাই মাসের শেষদিকে বেসরকারিখাতে ১৬ দশমকি ২ শতাংশ এবং সরকারি খাতে ১২ দশমিক ১শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে চলতি অর্থবছরের প্রথম মূদ্রানীতি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সরকার ব্যাংকখাত থেকে তেমন ঋণ না নিলেও বছর শেষে ব্যক্তিখাতের ঋণ প্রবৃদ্ধি ছাড়িয়েছে ১৯ শতাংশ। এতে বছরের শুরুতে অনেক ব্যাংককেই আমানত আকর্ষণে সুদের হার বাড়াতেও দেখা গেছে। গতবছরের শেষপ্রান্তিকে আগের তিনমাসের তুলনায় গড় মূল্যস্ফীতিও দশমিক শূণ্য সাত শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৯৩ শতাংশে। তাই আসন্ন মুদ্রানীতিতে এসব বিষয় বিবেচনায় নেয়ার পরামর্শ দেন অর্থনীতিবিদ পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউট (পিআরআই) এর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।
আহসান এইচ মনসুর বলেন,  'একদিকে আমাদের মূল্যস্ফীতি বেশি বেড়ে গেছে। এটার সাথে যেটা হয়েছে ব্যালেন্স অফ পেমেন্টে একটা বড় ঘাটতি দেখা দিয়েছে। এই ঘাটতিতে আমাদের রিজার্ভটা পতনের দিকে যাচ্ছে। মুদ্রানীতির মাধ্যমে এই তিনটা জিনিস এখন সমন্বয় করতে হবে। আরও বড় সমস্যা হচ্ছে, ডিপোজিট গ্রোথ মাত্র ১১ থেকে ১২ শতাংশ আর ক্রেডিট এক্সপেনসান হচ্ছে  ১৯ শতাংশ। এই দুইটার অনেক বড় গ্যাপ হয়ে গেছে এবং এটা কিন্তু সাসটেইনেবল না। ফলে যেটা হয়েছে, ক্রেডিট টু ডিপোজিট রেশিও ৯০ শতাংশের উপর চলে গেছে। এগুলো একটা সংযত পর্যায়ে আনতে হবে।'  
এবারের মুদ্রানীতিতে ঋণ ও আমানতে অনুপাত কমতে পারে বলে তথ্য উঠে এসেছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে। ইসলামী ব্যাংক এখন ১০০ টাকার আমানতের বিপরীতে ৯০ টাকা এবং সাধারণ বাণিজ্যিক ব্যাংক ৮৫ টাকা ঋণ দিতে পারে । যা কমে যথাক্রমে ৮৫ ও ৮০ টাকা করা হতে পারে। এতে কমবে ব্যাংকগুলারো ঋণ দেয়ার ক্ষমতা।
ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রি (ডিসিসিআই) সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহীম বলেন, 'যেহেতু এখন আপওয়ার্ড জিডিপি ট্ট্রেন্ডের মধ্যে আছি,তাই চাই এটা আরও বাড়ুক। উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনে পর্যাপ্ত বেসরকারি বিনিয়োগ প্রয়োজন, ঋণ প্রবাহ আরো উদার ও সহজ করে মুদ্রানীতি প্রণয়ন করা উচিৎ।'
গত ছয় মাসে আমদানির পরিমাণ বেড়েছে প্রায় ৯০ শতাংশ অন্যদিকে কমেছে প্রবাসীদের রেমিটেন্স প্রবাহের হার। তাই বছর শেষে কমেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop