খেলার সময় কত কথা বলে এই ছবি!

১৬-০১-২০১৮, ০৩:১২

মামুন শেখ

fb tw
কত কথা বলে এই ছবি!
নাসির হোসেন। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচেয়ে আলোচিত চরিত্রগুলোর একটি। ২২ গজে প্রাণোচ্ছল ব্যাটসম্যান, মাঠের যেকোনো প্রান্তে নির্ভরযোগ্য ফিল্ডিং বিশেষ করে পয়েন্ট অঞ্চলে বাজপাখির মতো উড়ন্ত নাসিরকে মনে ধরেনি এমন ক্রিকেটপ্রেমী খুঁজে পাওয়া ভার। বল হাতে দলের প্রয়োজনে ব্রেকথ্রু এনে দেয়ার ইতিহাসও কম নয়।
বটম অর্ডারে নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠা এ ফিনিশারও মুদ্রার উল্টো পিঠ দেখলেন অল্পদিনের মধ্যেই।
দিনে দিনে শক্তিশালী হচ্ছে দেশের ক্রিকেট। জাতীয় দলের দরজায় এখন ক্রিকেটারদের বিশাল ভিড়। এই ভিড় ঠেলে সামনে আসতে বহু কাঠখড় পোড়াতে হবে এটাই স্বাভাবিক। কাঠ-খড় নাসিরও জোগাড় করেগেছেন নিয়মিতই তবে সেটাতে আগুণ ঠিক লাগেনি। দিনের পর দিন পারফর্ম করে গেছেন ঘরোয়া ক্রিকেটে। তবে জায়গা হয়নি টাইগারদের ড্রেসিংরুমে। ২০১৪ সালে চান্ডিকা হাথুরুসিংহে কোচ হয়ে আসার পর থেকে ধীরে ধীরে অস্পষ্ট হতে থাকে নাসির নামটি। দল নির্বাচনে অতিরিক্ত হস্তক্ষেপ এবং টানা ব্যর্থতার পরেও পছন্দের ক্রিকেটারদের দলে সুযোগ দেয়ার অভিযোগ আছে এই লঙ্কান কোচের বিরুদ্ধে।
তবে দলে নাসিরের অবস্থান হারানোর প্রসঙ্গ উঠলেই বার বার সামনে চলে এসেছে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের নামটি। অনেকেই বলেন, ব্যক্তিগত ক্ষোভের কারণেই নাসিরকে দলে দেখতে চান না পাপন।
নাসির ইস্যুতে দর্শক, সমর্থকদের সামালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছে পাপনকে। এ ইস্যুতে টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফিও খুশি ছিলেন না বলেই জানা যায়। সবশেষ টি-২০ বিশ্বকাপে নাসির হোসেনকে খেলানোর ইস্যু নিয়ে কোচ চাণ্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে টাইগারদের অধিনায়ক কাম অভিভাবক মাশারাফির দ্বন্দ্বের খাবরও বেরিয়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে।
২০১৬ সালের অক্টোবরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে খেলেছিলেন ঘরের মাঠে। এরপর গেলবছর ঘরের মাঠে একের পর এক সিরিজ খেললো বাংলাদেশ। সফলতা আসলো দু'হাত ভরে। তবে সেই সফলতার অংশীদার হতে পারলেন না নাসির। অবহেলার জবাব অবশ্য দিয়েছে তাঁর ব্যাট। ঘরোয়া লিগে দুর্দান্ত সব সেঞ্চুরি বোর্ড কর্তাদের বিব্রতই করেছে বলতে হয়।
২০১৭ তে ডাবলিনে ত্রিদেশীয় সিরিজে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ ৯ ওভার বল করে ৪৭ রান দিয়ে নিয়েছিলেন ২ উইকেট। ৫ উইকেটে জেতা ম্যাচে ব্যাট করার সুযোগই পাননি। ঘরোয়া লিগে নাসিরের নিয়মিত পারফরম্যান্স উপেক্ষা করা সম্ভব হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকার কঠিন কন্ডিশনে সুযোগ হয় নাসিরের। সেখানে অবশ্য খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি এ অলরাউন্ডার। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে এমন পারফরম্যন্সের পর ফের দল থেকে নাসিরের বাদ পাড়ার শঙ্কা তৈরি হয় তার ভক্তদের মনে। তবে না, তেমনটি হয়নি। হাথুরুসিংহে পরবর্তী প্রথম সিরিজেই জায়গা হয়েছে নাসিরের। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম ম্যাচে ছিলেন একাদশেও।
এ ম্যাচটি দিয়ে ১৫ মাস পর শের-ই বাংলায় আবারও ফিরলো ওয়ানডে ক্রিকেট। ম্যাচ শুরুর আগে খেলোয়াড়দের সঙ্গে সৌজন্য বিনিময় করতে মাঠে আসেন বিসিবি বস। সেখানেই মুখোমুখি দু'জন। করমর্দনটা রুটিন ওয়ার্ক। কিন্তু দু'জনের মুখের ওই হাসি? সেটা যে একেবারেই অকৃত্রিম! দলের বাকিরাও হয়তো বুঝার চেষ্টা করছিলেন, তবে কি এই শীতেও বরফ গলছে।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop