বাংলার সময় পটুয়াখালীতে ডায়রিয়ায় দুইজনের মৃত্যু

২০-০৪-২০২১, ২২:৪১

মো. মনির হোসেন বাদল

fb tw
পটুয়াখালীতে ডায়রিয়ায় দুইজনের মৃত্যু
08
পটুয়াখালীতে ডায়রিয়ায় আক্রান্তের হার আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে চলেছে। প্রতিদিন আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে বহু মানুষ। গত এক সপ্তাহে ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। এ পর্যন্ত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে জেলায় মারা দুজনের মৃত্যু হয়েছে। 
অন্যদিকে জেলায় স্যালাইনের সঙ্কটও রয়েছে। পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জানালেন আগে সঙ্কট  থাকলেও বর্তমানে এখন কোনো সঙ্কট নেই।
প্রচণ্ড গরম, লবণাক্ত পানির ব্যবহার ও বাহিরের খাবার খাওয়ার ফলে পটুয়াখালী জেলায় ডায়রিয়ার প্রকোপ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। গত তিনদিনে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মির্জাগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষার্থী এক কিশোরীসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
আক্রান্তের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। তবে এদের মধ্যে কেউ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ছিলেন না বলে জানা যায়। তবে মৃতদের মধ্যে বেশিরভাগই পঞ্চাশোর্ধ।
সরেজমিনে দেখা যায়, পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া বিভাগে মাত্র ১৫টি বেড রয়েছে। প্রয়োজনীয় সংখ্যক বেড না থাকায় রোগীরা হাসপাতালে মেঝেতে ও করিডোরে বিছানা পেতেছেন। এতে করে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে রোগীদের। তাদের মধ্যে শিশু, নারী ও বৃদ্ধ বেশি। মেঝের নোংরা ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে থাকতে হচ্ছে তাদের।  
এ ছাড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মঙ্গলবার পর্যন্ত সকাল থেকে প্রতিদিন শতাধিক রোগী ভর্তি হচ্ছেন। সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় তা আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পায়। এ পর্যন্ত জেলায় মোট হাজারো রোগী ডায়রিয়ার চিকিৎসা নিয়েছেন।
চিকিৎসাধীন কয়েকজন রোগী জানান, বেড না থাকায় মেঝের নোংরা পরিবেশে তাদের থাকতে হচ্ছে। এতে করে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।
আমাদের স্যালাইন সংকট বেশি রয়েছে। এছাড়া চিকিৎসক, নার্স ও জনবল সংকটের কারণে আমরা রোগীদের সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছি বলে জানিয়েছেন পটুয়াখালী ডায়রিয়া ওয়ার্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়ার নার্স সোলালী রানী। 
পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আব্দুল মতিন বলেন, অধিদপ্তর থেকে কোনও বিষয়ে কথা বলতে নিষেধ আছে। তবে, এমনিতেই হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ওষুধপত্র আছে। কিন্তু চিকিৎসক ও জনবলের ঘাটতি আছে। আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করছি রোগীদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে। এ সময় সাধারণত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ে। আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ওষুধ এবং স্যালাইন মজুত রয়েছে। এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।
পটুয়াখালী জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম শিপন জানান, জেলায় এখন পর্যন্ত ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় দুই হাজারের বেশি। বর্তমানে আমাদের  স্যালাইনসহ পর্যাপ্ত ওষুধের মজুদ রয়েছে।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop