মহানগর সময় গণতন্ত্র কেড়ে নিয়ে সবচেয়ে বড় বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আওয়ামী লীগ

০৭-০৩-২০২১, ১৭:৪৬

সালাহউদ্দীন সুমন

fb tw
 গণতন্ত্র কেড়ে নিয়ে সবচেয়ে বড় বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আওয়ামী লীগ
02
ক্ষমতায় টিকে থাকতে আওয়ামী লীগ মিথ্যা ইতিহাস চাপিয়ে দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে বলে মন্তব্য করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জাতির সামনে প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরার প্রয়াস থেকেই এবার ৭ মার্চ পালন করা হচ্ছে। 
জাতীয় প্রেসক্লাবে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, গণতন্ত্র কেড়ে নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার সাথে সবচেয়ে বড় বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আওয়ামী লীগ।
১৯৭৮ সালে রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর ৭ মার্চ উপলক্ষে এটিই বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি'র প্রথম কর্মসূচি। রোববার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এ আলোচনা সভায় যোগ দেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ শীর্ষ নেতারা।
অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে ঐতিহাসিক বলে আখ্যা দিয়ে বিএনপি নেতারা বলেন, ভাষণটি সেই সময় জাতিকে উদ্দীপ্ত করেছিলো। তবে ৭ই মার্চের গুরুত্ব ও গৌরবগাঁথা নিয়ে যৎসামান্য আলোচনা হলেও বড় অংশজুড়েই করা হয় তীর্যক মন্তব্য।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি মহাসচিব বলেন, শুধুমাত্র ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য, ব্যক্তিগত স্বার্থে নিজেদের মহিমান্বিত করার জন্য, একজন মানুষকে মহিমান্বিত করার জন্য, একটি পরিবারকে মহিমান্বিত করার জন্য তারা মিথ্যা ইতিহাস এদেশের মানুষের ওপর চাপিয়ে দিচ্ছে।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ক্ষমতাসীনদের বক্তব্যে কোথাও তোফায়েল আহমেদের কথা পাবেন না, আব্দুল হামিদ খান ভাসানির কথা পাবেন না। এমনকি মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এমএজি ওসমানির নামও একবারও উচ্চারণ
করা হয় না। যুদ্ধকালীন সরকারের যিনি নেতৃত্ব দিলেন তার নামও নেয়া হয় না। কতো সংকীর্ণ আর ভয়ংকার এরা। এদের একমাত্র কাজ হচ্ছে, মুক্তিযুদ্ধে যাদের অবদান আছে, তাদের দূরে সরিয়ে রাখা। তাদের একমাত্র স্লোগান,
এক নেতার এক দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ। এটা শুরু হয়েছে সেই একাত্তরের পর থেকেই। তখন থেকেই তাদের মধ্যে ছিলো, আমরা এক ও অদ্বিতীয়, এখানে একজন ছাড়া কেউ থাকবে না। এখনো সেই একই কাজ শুরু হয়েছে।
তাহলে সবকিছুর দায় তার ওপর (প্রধানমন্ত্রীর)। তাহলে আল জাজিরা যখন বলে 'অল প্রাইম মিনিস্টারস মেন' তখন কী অপরাধ তারা করে?
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, নিজেদের বেআইনি শাসন বলবৎ রাখার জন্য এই আইন করা হয়ছে।
জিয়াউর রহমানের খেতাব বাতিলের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, খেতাবে কী আসে যায়, জিয়াউর রহমানের খেতাবের প্রয়োজন হয় না।
অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ৭ মার্চের ভাষণ ঐতিহাসিক। এই ভাষণ জাতিকে উদ্দীপ্ত করেছিলো। 
তিনি বলেন, মুজিবুর রহমানের অবদানকে ছোট করে দেখে না বিএনপি। বিএনপি ইতিহাস থেকে কাউকে মুছে ফেলতে চায় না।
৭ মার্চের ভাষণ সম্পর্কে মোশাররফ বলেন, এই ভাষণে পাকিস্তানের কাঠামোর ভেতরে থেকেই সংখ্যাগরিষ্ট দল হিসেবে ক্ষমতায় আসীন হওয়ার আভাস ছিলো।
বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের অনেকগুলো মাইল ফলকের মধ্যে একটি অন্যতম ও গুরুত্বপূর্ণ মাইল ফলক হলো ৭ মার্চ।
তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলের প্রোপাগান্ডা কিংবা আদালতের নির্দেশে ইতিহাস রচিত হয় না। ইতিহাস রচন করবেন ইতিহাসবিদরা, রাজনীতিবিদরা নয়।
বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, বিএনপি ৭ই মার্চ পালনে করায় আওয়ামী লীগে গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের আর কোনো পুঁজি নাই, একটাই পুঁজি ৭ মার্চ। যে ভাষণে গোটা দেশ স্বাধীনতার ঘোষণা আশা করেছিলো, তা আসেনি বঙ্গবন্ধুর ভাষণে।
মির্জা আব্বাস বলেন, বঙ্গবন্ধু ও জিয়াউর রহমানের অবস্থান নির্ধারণ করবে ইতিহাস। কারো বানানো ইতিহাসে জিয়াকে ছোট আর বঙ্গবন্ধুকে বড় করা যাবে না।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop