বাংলার সময় বেরোবি গিলে খাচ্ছেন ভিসি কলিমউল্লাহ ও তার পরিবার!

০৬-০৩-২০২১, ১০:৪৫

রতন সরকার

fb tw
01
একসময় বিভাগীয় প্রধান ডিনসহ অনেক পদ আঁকড়ে ছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। সমালোচনার মুখে কয়েকটি পদ ছেড়েছেন। শিক্ষকদের অভিযোগ, এসব পদের আর্থিক সুবিধা ও নিয়োগ বোর্ডে একক কর্তৃত্ব ধরে রাখতেই অন্য কাউকে দায়িত্ব দেননি। সমাজবিজ্ঞান বিভাগ ও জেন্ডার অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগে শিক্ষক নিয়োগে তিনটি পদের প্রতিনিধিত্ব একাই করেছেন কলিমউল্লাহ আর এক্সপার্ট হিসেবে ছিলেন তার মা নিলুফার বেগম। 
একসময় ট্রেজারার, ৬টি ডিপার্টমেন্টের প্রধান, ৪টি ডিন, ৭টি প্ল্যানিং কমিটির সভাপতি এবং ড. ওয়াজেদ রিসার্চ সেন্টারের পরিচালকের পদ একাই দখল করে রেখেছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। সমালোচনার মুখে ৩টি ডিপার্টমেন্ট ও ৩টি ডিনের পদ ছেড়ে দেন। সম্প্রতি ট্রেজারার পদে নিয়োগ দিয়েছেন। কিন্তু নতুন করে নিজের মা নিলুফার বেগমকে বানিয়েছেন নিয়োগ বোর্ডের সদস্য।
সমাজবিজ্ঞান এবং জেন্ডার অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের প্রভাষক নিয়োগ নিয়ে আছে আত্মীয়করণের অভিযোগ। এই পদের নিয়োগ বোর্ডে ভিসি পদাধিকার বলে, বিভাগের সভাপতি হিসেবে এবং ডিন হিসেবে তিনটি পদে একাই প্রতিনিধিত্ব করেন ড. কলিমউল্লাহ এবং এক্সপার্ট হিসেবে নিয়োগ বোর্ডের আরেকজন সদস্য ছিলেন তার মা নিলুফার বেগম।
বেরোবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান জানান, হাস্যকর বিষয়, ওই বোর্ডের বিভাগী সভাপতি ও ডিন তার মা। এ ছাড়া আবুল কাশের নামে একজন শিক্ষক আছেন তাকে ১২টি নিয়োগ বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে। এভাবে দুর্নীতি করা হয়েছে। 
অনেকের অভিযোগ, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে নিজ এলাকা চান্দিনার আবু হেনা মুস্তাফা কামালকে রেজিস্ট্রার নিয়োগ, ভর্তি জালিয়াতির দায়ে ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আবুল কালাম আজাদকে নিরাপত্তা কর্মকর্তা নিয়োগ, নিয়োগ বাণিজ্য অভিযুক্ত আমিনুর রহমানকে ব্যক্তিগত সচিব পদে নিয়োগ ও আইন ভেঙে পদন্নোতি এবং ভায়রা মাহমুদুল হাসানকে গোপনে নিয়োগ দেয়াসহ অসংখ্য অভিযোগ উঠছে তার বিরুদ্ধে।
বেরোবি শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি গাজী মাজহারুল আনোয়ার জানান, আইন অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালিত হয়ে থাকে। কিন্তু এই উপাচার্য আসার পর সেই আইনকে পদদলিত করে নিজের ইচ্ছামতো বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করে আসছেন।
ইদানীং ক্যাম্পাসে আসছেন না উপাচার্য। ধরছেন না মোবাইল ফোনও। তাই অভিযোগ প্রসঙ্গে তার মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop