x

বাংলার সময় জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে চতুর্থ দিনেও স্বাচিপ’র কর্মবিরতি

২৯-১২-২০২০, ১৯:৩৮

জাহাঙ্গীর আলম

fb tw
জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে চতুর্থ দিনেও স্বাচিপ’র কর্মবিরতি
11
জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে রোগীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে স্বজন-ডাক্তারদের মধ্যে হামলা ভাঙচুরের প্রতিবাদে তিন দফা দাবিতে চতুর্থ দিনেও কর্মবিরতি পালন করছে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ। মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) সকাল থেকে কর্মবিরতি শুরু হয়। এর ফলে জরুরী বিভাগে চিকিৎসক না থাকায় সেবা নিতে আসা রোগীরা সেবা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন।
এদিকে মৃত রোগীর স্বজনদের মারপিট এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী বন্ধের দাবিতে মঙ্গলবার দুপুর ১টায় জামালপুরবাসীর ব্যানারে প্রতিবাদ সমাবেশ ও দুই ঘণ্টাব্যাপী শহরের প্রধান সড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী।
উল্লেখ্য, গত ২৫ ডিসেম্বর জামালপুর শহরের ইকবালপুর গ্রামের এক বৃদ্ধা মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে আহত হন। তাকে উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। জরুরী বিভাগের চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে ভর্তি করেন। দুপুর ৩টায় তার অবস্থার অবনতি হলে রোগীর স্বজনরা নার্স ও চিকিৎসকদের ডাকাডাকি করেন। আধা ঘণ্টা পর জরুরী বিভাগের চিকিৎসক রোগীকে দেখে তাকে মৃত ঘোষণা করে।
এ খবরে রোগীর স্বজনরা ক্ষিপ্ত হয়ে হাসপাতালের জরুরী বিভাগে হামলা ভাংচুর করেন। এ সময় তারা জরুরী বিভাগে থাকা ডাক্তার ও কর্মচারীদের মারধর করেন। পুলিশ ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার সময় একজন পুলিশ আহত হয়। পরে রোগীর স্বজন ও চিকিৎসকদের সমঝোতায় রোগীকে তার পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেন।
হাসপাতালে জরুরী বিভাগে হামলা ভাংচুর ও চিকিৎসকের উপর হামলার খবরে হাসপাতালে ইন্টার্ন ডাক্তাররা ক্ষিপ্ত হয়ে হাসপাতাল চত্বরে অবস্থান নেয়। এ সময় ইন্টার্ন ডাক্তাররা রোগীর এক স্বজনকে মারধর ও তার মোটর সাইকেল ভাংচুর করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে লাঠিচার্জ করে। 
এ সময় ৮ জন ইন্টার্ন ডাক্তারকে আটক করে পুলিশ। পরে পরিস্থিতি শান্ত হলে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট বাকী বিল্লাহ্, সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী সদর থানায় এসে ডাক্তারদের থানা থেকে ছাড়িয়ে নেন। 
এরপর ২৬ ডিসেম্বর পুলিশের বিরুদ্ধে ডাক্তারদের আটক ও মারধরের ঘটনায় কর্মবিরতি পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ। এই ঘটনায় জামালপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ডাক্তারদের সাথে বৈঠক হয়। বৈঠকে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য উচ্চ পর্যায়ের সাত সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়। পরে রাতে হাসপাতাল ভাংচুরের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop