আন্তর্জাতিক সময় ক্ষমতা ছাড়ার আগমুহূর্তে কেন কাতার-সৌদি যাচ্ছেন ট্রাম্পের জামাতা?

৩০-১১-২০২০, ১৫:৪৯

আন্তর্জাতিক সময় ডেস্ক

fb tw
ক্ষমতা ছাড়ার আগমুহূর্তে কেন কাতার-সৌদি যাচ্ছেন ট্রাম্পের জামাতা?
কাতার এবং সৌদি আরবে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা এবং উপদেষ্টা জেরাড কুশনার। মার্কিন গণমাধ্যমের তথ্য মতে, চলতি সপ্তাহের যে কোনো সময় দুই দেশের উদ্দেশে রওয়ানা হবেন তিনি। সফরে কাতারের আমির এবং সৌদির প্রভাবশালী যুবরাজ সালমানের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে বিবাদ মেটাতেই সফরের আয়োজন করা হয়েছে।
রোববার (২৯ নভেম্বর) ট্রাম্প প্রশাসনের এক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা বার্তাসংস্থা রয়র্টাসকে জানান, হোয়াইট হাউজের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা কুশনার সৌদির যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে দেখা করবেন দেশটির নিওম শহরে। ওই সময় কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল তাহনিও সেখানে থাকবেন বলে খবরে জানা গেছে। সম্প্রতি ইরানের জ্যেষ্ঠ পরমাণু বিজ্ঞানীকে হত্যার ঘটনার পরপরই প্রতিবেশী এই দুই দেশের নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাতের ঘোষণা এলো।
কাতার ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে মদদ দিয়ে আসছে’ এমন অভিযোগ তুলে ২০১৭ সালে দেশটির আকাশপথ এবং অর্থনৈতিকসহ বেশ কয়েকটি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে আরব আমিরাত, বাহরাইন, মিশরসহ সৌদি আরব। পরবর্তীতে দোহাকে ১৩টি শর্ত ছুঁড়ে দিয়ে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার কথা জানায় দেশগুলো। যদিও শর্তগুলো প্রত্যাখান করে কাতার। তখন কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞায় কিছুটা বিব্রত হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কারণ কাতারের কাছে অস্ত্র বিক্রির চুক্তি করেন ট্রাম্প।
এদিকে, সাক্ষাতের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রোবার্টও ব্রাইন সম্প্রতি জানান, পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলোর মধ্যে চলমান উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্ক মেটাতে অগ্রাধিকার দিচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জানুয়ারিতে ক্ষমতা হস্তান্তরের আগেই কাজটি সম্পূর্ণ করতে চান। গেল মাসেও এমন ইঙ্গিত আসে রিয়াদের পক্ষ থেকেও।
সৌদির পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিন্স ফয়সাল বিন ফারহান বলেন, ‘কাতারি ভাইদের সঙ্গে আমরা আবারও সুসম্পর্ক গড়তে চাই। আমরা আশা করব তারাও সেটাই চাইবে।’
তিনি বলেন, কাতারের ওপর যে অবরোধ আরোপ করা হয়েছে তা শেষ করতে সৌদি একটি উপযুক্ত উপায় খুঁজে যাচ্ছে। কিন্তু নিরাপত্তার প্রশ্নে এটি শর্তাধীন থেকে যাচ্ছে।
গেল আগস্টে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং কুশনারের প্রচেষ্টায় ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্বাভাবিক করে আমিরাত, বাহরাইন এবং সুদান। একে ঐতিহাসিক চুক্তি অ্যাখা দেন ট্রাম্প। আরও কয়েকটি আরব দেশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে যাচ্ছে বলেও আভাস দেন তিনি। তখন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলিতে খবর প্রকাশ হয়, মুসলিম রাষ্ট্র সৌদি আরব ইহুদি রাষ্ট্র ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে পারে। এই গুঞ্জনের আরো ডালপালা মেলে গেল কয়েকদিন আগেই। যখন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এবং ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বিনইয়ামিন নেতানিয়াহু সৌদি সফর করেন। তবে নেতানিয়াহুর সঙ্গে যুবরাজ সালামনের আলোচনার কথা অস্বীকার করে সৌদি আরব।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop