Close (x)

বাংলার সময় ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার

১৩-০৮-২০২০, ২০:১২

উজ্জল চক্রবর্তী

fb tw
ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগে এসআই প্রত্যাহার
ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে অর্থ আদায়ের অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর সরিয়ে দেওয়া হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মতিউর রহমানকে। তাকে আখাউড়া থানা থেকে সরিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পুলিশ লাইনে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) বিকেলে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, কাউকে প্রত্যাহার  করা হয়নি। এসআই মতিউর রহমানকে দায়িত্ব পালনের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আনা হয়েছে। বেলা আড়াইটা নাগাদ আদালতের কোনো কাগজপত্র পাই নি। যে কারণে কোনো কোনো পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে সেটা অফিসিয়ালি বলার সুযোগ নেই। এছাড়া যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে তাদের মধ্যে তিনজন অন্যত্র বদলি হয়ে গেছেন। একজন (হুমায়ুন) অসুস্থতার কারণে ছুটিতে আছেন। এ অবস্থায় কাগজপত্র না দেখে কোনো ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না।
বুধবার (১২ আগস্ট) আখাউড়া পৌর এলাকার মসজিদ পাড়ার বাসিন্দা হারুণ মিয়া নামে এক ব্যক্তি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (আখাউড়া) আদালতে পাঁচ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালত ইন্সপেক্টরের নিচে নয় এমন কাউকে দিয়ে তদন্ত করিয়ে এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন। এর আগে একই বিষয়ে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দেয়ার পর এর তদন্ত চলছে।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, আখাউড়ার পৌর এলাকার মসজিদ পাড়ার বাসিন্দা হারুনের প্রতিবেশী হাসিনা বেগম (চিকুনি বেগম) ও তার মেয়ে তানিয়া এবং তানজিনার সঙ্গে যোগসাজশে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যরা মাদক ব্যবসা করে আসছে। হারুন মিয়া এতে বাঁধা দিলে চিকুনী ক্ষুব্ধ হয়ে পুলিশের কাছে হারুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেন। গত ২৬ মে গভীর রাতে অভিযুক্ত পাঁচ পুলিশ সদস্য এসআই মতিউর রহমান, হুমায়ুন কবির, এএসআই মো. খোরশেদ, কনস্টেবল প্রশান্ত, সৈকত নাটকীয়ভাবে চিকুনী বেগমকে গ্রেফতার দেখিয়ে তার প্ররোচনায় পরিকল্পিতভাবে ওই পুলিশ সদস্যরা হারুনের বাড়িতে প্রবেশ করে তল্লাশি নামে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে। এ সময় ক্রসফায়ার ও হত্যার ভয় দেখিয়ে ঘরে থাকা নগদ ৪০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এ ছাড়াও তারা ঘরের আসবাবপত্র তছনছ করে ফেলে। 
পরবর্তীতে ওই দিন ভোর চারটার দিকে পুনরায় ওই পুলিশ সদস্যারা এসে হারুন ও তার স্ত্রীকে মিথ্যা মাদক মামলা ও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের ভয় দেখিয়ে তাদেরকে আটক করে এক লাখ টাকা দাবি করে। পরে ওই পুলিশ সদস্যদের পঞ্চাশ হাজার টাকা দিয়ে ছাড়া পান হারুন ও তার স্ত্রী। বিষয়টি উপরের অফিসারদের জানালে হারুনকে ক্রসফায়ার দেয়া হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়।
তবে অভিযুক্তদের মধ্যে এসআই মতিউর রহমান এ ঘটনা সাংবাদিকদের কাছে পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, টাকা নেয়া তো দূরের কথা হারুণ মিয়ার বাড়িতে গেছেন এমন প্রমাণ থাকলে যে কোনো শাস্তি মাথা পেতে নেবেন। মূলত পাওনা টাকা দিতে এক ব্যক্তিকে চাপ দেয়ায় তার প্ররোচনায় এ অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop