Close (x)

বাংলার সময় রোগী গুলিয়ে ফেলে পাইলসের অপারেশনে পিত্ত কে‌টে দিলেন চিকিৎসক

১৩-০৮-২০২০, ১৫:৩৮

ওয়েব ডেস্ক

fb tw
রোগী গুলিয়ে ফেলে পাইলসের অপারেশনে পিত্ত কে‌টে দিলেন চিকিৎসক
রোগী গুলিয়ে ফেলে পাইলসের রোগীর পিত্তথলী কেটে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। 
বুধবার (১২ আগস্ট) রা‌তে ঘটনাটি ঘটেছে নওগাঁর প্রাইম ল্যাব এন্ড জেনারেল হাসপাতালে। ভুক্তভোগী রোগী আসমা খাতুন (২৫) বর্তমানে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন।
স্বজনদের দাবি আসমার অপারেশন হয়েছে ১টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত। আর অপারেশন থিয়েটারে নওগাঁ হাসপাতালের সার্জারি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার মুক্তার হোসেন, অজ্ঞান বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ও ক্লিনিকের স্বত্বাধিকারী ডাক্তার ইসকেন্দার হোসেন অপারেশন থিয়েটারে ছিলেন।
রোগীর ভাই আতোয়ার রহমান জানান, তার বোন আসমা খাতুন পাইলসের রোগী। তাকে অপারেশন করার জন্য ১২আগস্ট দুপুরে ভর্তি করানো হয় শহরের প্রাইম ল্যাব এন্ড হাসপাতালে। সেখানে ছিল ৩জন পিত্তথলীতে পাথরের রোগী এবং আসমা খাতুন ছিল পাইলসের অপারেশনের রোগী।
সেখানে ভুল করে তাকে পিত্তথলীতে পাথরের জন্য অপারেশন কার্যক্রম শুরু করেন। আসমা খাতুন বাধা দিলেও ডাক্তার কোন কথা না শুনে অজ্ঞান করে কেটে দেখে পিত্তথলীতে পাথর নাই। পরে সেলাই করে ৬ তলার ১৫নং কেবিনের বেডে নিয়ে আসে। পরে ৩ রোগীকে পিত্তথলীর অপারেশন করার পর পাইলস রোগী না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজির পর আবারও আসমা খাতুনকে নিয়ে পুনরায় পাইলস অপারেশন করে।
একই ব্যক্তিকে দুটি অপারেশন করায় বর্তমানে রোগী মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। বিষয়টি জানাজানি হলে ক্লিনিকের মালিক ইসকেন্দার ও মুক্তার হোসেন পালিয়ে যান। রোগীর তেমন কোন চিকিৎসা হচ্ছে না বলে জানান রোগীর স্বজনরা। এ বিষয়টি তদন্ত করে ডাক্তারদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তারা।
এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা কোন ফোন রিসিভ করেনি। এ বিষয়ে নওগাঁর সিভিল সার্জন ডা. আ. ম. আখতারুজ্জামান আলালের সাথে কথা বললে তিনি ঘটনাটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।
উল্লেখ্য, নওগাঁর শহরের হাসপাতাল রোডে প্রাইম ল্যাব লিঃ ২০ শয্যার অনুমোদন নিয়ে ক্লিনিক চালু থাকলেও প্রকৃতপক্ষে সেখানে ২০০ শয্যা চালু আছে। কয়েক ডজন নার্স থাকলেও হাতে গোনা ২/১ জন ডিপ্লোমা ডিগ্রীধারী নার্স আছে। প্যাথলজি বিভাগ থাকলেও প্যাথলজিষ্ট নেই। এক্সরে মেশিন থাকলেও বিধিসম্মত অনুমোদন নেই। এক কথায় কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে এই ক্লিনিকটি তার কার্যক্রম চালাচ্ছে বলে অভিযোগ আছে।
অপরদিকে নামমাত্র অনুমোদন নিয়ে ক্লিনিকের পাশাপাশি চলছে নার্সিং ইন্সটিটিউট। যদিও ইন্সটিটিউট নার্সদের শিক্ষা দেওয়ার মত কোন প্রশিক্ষকও নেই। এলাকাবাসী জরুরী ভিত্তিতে ক্লিনিকের কার্যক্রম তদন্ত করে বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য জোর দাবি জানিয়েছেন।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop