বাংলার সময় ফরিদপুরে সাদ পরিবহনের বাস চলাচলকে কেন্দ্র করে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন

১৫-০৭-২০২০, ০১:২৩

সুমন ইসলাম

fb tw
ফরিদপুরে সাদ পরিবহনের বাস চলাচলকে কেন্দ্র করে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন
আলফাডাঙ্গা-ঢাকা রুটে সাদ পরিবহনের বাস চলাচলকে কেন্দ্র করে ফরিদপুরে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের নতুন বাসস্ট্যান্ড কার্যালয়ে বাস মালিক গ্রুপ এবং দুপুরে শহরের রথখোলাস্থ নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন সাদ পরিবহনের সত্ত্বাধিকারী কামরুজ্জামান সিদ্দিকী।
সংবাদ সম্মেলনে সাদ পরিবহনের স্বত্বাধিকারী কামরুজ্জামান সিদ্দিকী কামরুল বলেন, ‘বাস মালিক গ্রুপের অনুমোদিত সময়সূচী অনুযায়ী ঢাকা-আলফাডাঙ্গা রুটে দীর্ঘ বছর যাবত সাদ পরিবহন চলাচল করছিল। তবে ২০১৫ সালের পর বাস মালিক গ্রুপের অব্যাহতি প্রাপ্ত সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন বরকত রাজনৈতিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে অন্যায়ভাবে ওই রুটে সাদ পরিবহনের বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়, পরে সেখানে তার মালিকানাধীন সাউথ লাইন পরিবহন বাস চালায়। বর্তমান বাস মালিক গ্রুপের যে কমিটি রয়েছে, সেটি অব্যাহতি প্রাপ্ত পুলিশের হাতে গ্রেফতার বরকতের নিজস্ব পকেট কমিটি। বরকতের লোকজনই উদ্ভট দাবী ও কথাবার্তা বলে আমার বাস চলাচলে বাধা দিচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে বাস মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আলী আহসান বনি জানান, কামরুল ইসলাম সিদ্দিকীর নিজস্ব বাস আছে একটি। তিনি মালিক সমিতির সাথে ভাড়া চুক্তি করে ঢাকা-অলফাডাঙ্গা রুটে বাস চালাতেন। এর বিনিময়ে তিনি সমিতিকে মাসিক ভাড়া পরিশোধ করতেন। কিন্তু কামরুল এখন দাবি করে বেড়াচ্ছে আলফাডাঙ্গা-ঢাকা রুটের ট্রিপগুলি সাদ পরিবহনের নিজস্ব ট্রিপ। যা মোটেও সত্য নয়। এই রুটের ট্রিপ সমূহের মালিক বাস মালিক গ্রুপ। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বাস কোম্পানি রুট ভাড়া নিয়ে বাস চলাচল পরিচালনা করেছে।
তিনি বলেন, ‘বাস মালিক গ্রুপ কামরুল ইসলাম সিদ্দিকীর কাছে বাস ভাড়া বাবদ ৮৩ লাখ ৩৩ হাজার টাকা পাবে, যা এখনো তিনি পরিশোধ করেনি।’
এদিকে, বিপুল পরিমাণ এই পাওনা টাকার বিপরীতে বাস মালিক গ্রুপের প্রমাণ হিসেবে তিনি সাজ্জাদ হোসেন বরকতের সময়কালে তৈরিকৃত একটি হিসাব তুলে ধরেন। জয়েন্ট স্টক কর্তৃক নিবন্ধিত ফরিদপুর জেলা বাস মালিক গ্রুপের বার্ষিক অডিট নিষ্পত্তি করা হয় সরকার অনুমোদিত নিরীক্ষণ কোম্পানীর মাধ্যমে। যদিও এই পাওনার স্বপক্ষে এমন কোন অডিট রিপোর্ট তিনি দেখাতে পারেননি।
এসময় তিনি ২০০৯ সালে গ্রুপের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আহসানুল হক আলমের স্বাক্ষরিত একটি পত্র দেখান যেখানে কামরুজ্জামান সিদ্দিকী কামরুলকে পাওনা পরিশোধ করতে বলা হয়। তবে গ্রুপের বর্তমান কমিটির দাবির সাথে ওই পাওনা টাকার বিশাল ফারাক রয়েছে।
২০১৯-২১ সালের বাস মালিক গ্রুপের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন কাজী সাইফুর রহমান সোহেল। তাকে অন্যায়ভাবে পদত্যাগে বাধ্য করে তৎকালীন সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন বরকত এই আলী আহসান বনিকে সাধারণ সম্পাদক বানান বলে অভিযোগ রয়েছে।
এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ফরিদপুর বাস মালিক গ্রুপের সাবেক সভাপতি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন, সহ সভাপতি বিমল কুমার মজুমদার ও গৌতম কুমার ঘোষ, নির্বাহী সদস্য শ্যমল কুমার সাহা প্রমুখ।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop