আন্তর্জাতিক সময় সোলাইমানিকে হত্যা করে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে যুক্তরাষ্ট্র

১০-০৭-২০২০, ১৬:৫৭

আন্তর্জাতিক সময় ডেস্ক

fb tw
সোলাইমানিকে হত্যা করে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে যুক্তরাষ্ট্র
ইরানি কমান্ডার কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে যুক্তরাষ্ট্র- বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের বিশেষদূত অ্যাগনেস ক্যালামার্ড এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, সোলাইমানিকে হত্যা করে ভয়ানক নজির স্থাপন করেছে ওয়াশিংটন। এদিকে জাতিসংঘের বক্তব্যকে উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং কল্পানপ্রসূত বলে প্রত্যাখ্যান করেছে ট্রাম্প প্রশাসন।
মার্কিন স্বার্থবিরোধী পরিকল্পানার কারণে হত্যা করা হয় ইরানি কমান্ডার কাসেম সোলাইমানিকে। ৩ জানুয়ারি বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলায় তাকে হত্যার পর এ দাবি করে ট্রাম্প প্রশাসন। ওই হামলায় সোলাইমানির সঙ্গে নিহত হয় আরো ৯ জন।
বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বিষয়ক বিশেষদূ ত বলেছেন, ওয়াশিংটন তার অভিযোগের পক্ষে কোনো তথ্য প্রমাণ দিতে পারেনি। যুক্তরাষ্ট্রের আচরণকে বর্বর বলেও মন্তব্য করা হয়।
অ্যাগনেস ক্যালামার্ড বলেন, জেনারেল কাসেম সুলাইমানি ইরাক ও সিরিয়ায় ইরানের সামরিক কৌশল ও পদক্ষেপের নীতি-নির্ধারণী ভূমিকা পালন করতেন। কিন্তু তিনি কারো জীবনের জন্য কোনো হুমকি ছিলেন না। কাজেই যুক্তরাষ্ট্র তাকে হত্যা করে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে। মার্কিন ঘাঁটিতে ইরানের প্রতিশোধমূলক হামলাও অবৈধ।
জাতিসংঘের মার্কিনবিরোধী মন্তব্যকে বুদ্ধিবৃত্তিক অসত্যতা বলে অভিহিত করেছে ওয়াশিংটন। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, আত্মরক্ষার জন্য কাসেম সোলাইমানি হত্যা করা হয়েছে। একটি বিবৃতির মাধ্যমে বিশ্বের ভয়াবহ সন্ত্রাসী হিসেবে সোলাইমানির কুখ্যাত অতীতকে মুছে ফেলার চেষ্টা চলছে বলেও অভিযোগ মার্কিন প্রশাসনের।
মর্গান ওটাগুস বলেন, উদ্দেশ্যমূলক এবং বিভ্রান্তকর প্রতিবেদনে সন্ত্রাসবাদকে সহায়তা করা হচ্ছে। অবজ্ঞা করা হচ্ছে মানবাধিকার। এসব কারণে মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে যুক্তরাষ্ট্র ২০১৮ সালে বেরিয়ে যায়।
সাবেক মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্ট জন বোল্টন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সাংবিধানিক ক্ষমতাবলে সোমলাইমানিকে হত্যা করা হয়েছে।
তার এমন মন্তব্যে জাতিসংঘে রুশ প্রতিনিধি মিখাইল উলিয়ানোভ যুক্তরাষ্ট্রের সাংবিধানিক ক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।
ইরানের সর্বোচ্চ নেতার পরই সবচেয়ে ক্ষমতাধর ছিলেন সোলাইমানি। বিপ্লবী গার্ডের বিদেশ শাখা কুদসের প্রধান ছিলেন তিনি। মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের নীতি বাস্তবায়নে বন্ধুরাষ্ট্র ছাড়াও সশস্ত্রগোষ্ঠী হিজবুল্লাহ, হামাস, ইসলামি জিহাদকে অর্থ, অস্ত্র, দিকনির্দেশনাসহ সবধরনের সহযোগিতা দেয়া ছিল সোলাইমানির কাজ।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop