অন্যান্য সময় সুরাইয়া তারকার সঙ্গে করোনার কী সম্পর্ক?

২৮-০৪-২০২০, ১৪:৫০

অন্যান্য সময় ডেস্ক

fb tw
সুরাইয়া তারকার সঙ্গে করোনার কী সম্পর্ক?
বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ প্রতিরোধে হিমশিম খাচ্ছে বিভিন্ন দেশ। কিন্তু এর মধ্যে সামাজিকমাধ্যমে একটি অডিও ভাইরাল হয়েছে, যেখানে বলা হচ্ছে, আগামী ১২ মে আকাশে সুরাইয়া তারকা উদিত হলে করোনাভাইরাস দূর হবে।
ওই অডিও বার্তাটি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় বিজ্ঞ আলেমদেরও দৃষ্টিগোচর হয়েছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে নিজেদের মতামত তুলে ধরেছেন আলেমরা।
যে হাদিসটির উদ্ধৃতিতে দিয়ে সুরাইয়া তারকার কথা বলা হচ্ছে সেই হাদিসটি হলো- হযরত আবু হুরায়রা (রা.)  থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘যখন তারাটি উঠবে, তখন প্রতিটি শহরবাসী থেকে রোগব্যাধি উঠিয়ে নেয়া হবে।’
কিন্তু বিজ্ঞ আলেমরা বলছেন, এর ফলে মানুষ বিভ্রান্তিতে তো পড়ছেনই, তারা শিরকও করছেন।
বিশ্লেষকরা বলছেন, আকাশে সুরাইয়া নামে একটা তারকাপুঞ্জ রয়েছে। বাংলায় যাকে কৃত্তিকা বলা হয়। এই তারকাপুঞ্জটিতে এক হাজারের বেশি তারকা রয়েছে। কিন্তু খালি চোখে সাতটি তারকা দেখা যায়।
হযরত আবু হুরায়রা (রা.) এর বর্ণনায় যে হাদিসটির উদ্ধৃতি দেয়া হচ্ছে, সেই হাদিসকে দুর্বল হিসেবে অভিহিত করেছেন বেশিরভাগ মুহাদ্দিস। যা কোন বিষয়ে প্রমাণ হতে পারে না। দ্বিতীয়ত এ হাদিসের ব্যাখ্যা খুঁজতে গিয়ে হাদিসের ইমামরা আরও কিছু হাদিস খুঁজে পান। মুহাদ্দিসরা সেইসব হাদিসগুলো উদ্ধৃতি দিয়েছেন।
যেমন আব্দুল্লাহ ইবনে উমর বলেছেন, মহানবী (সা.) ব্যাধি চলে যাওয়ার আগে ফল বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন। বর্ণনাকারী উসমান বলেন, আমি ইবনে উমারের কাছে জিজ্ঞেস করলাম, কখন যাবে সেই ব্যাধি। তিনি বললেন, ওটা সুরাইয়া তারকাপুঞ্জ উদয়ের পর।
আরেক হাদিসে হযরত জাবের (রা.) বলেন যে, ‘রাসূল (স.) ফল পাকার আগে (অর্থাৎ খারাপ আবহাওয়া হতে মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত) বিক্রি করতে নিষেধ করেছেন।’
এ বিষয়ে আরো বহু হাদিস আছে। যা প্রমাণ করে রাসূলের (সা.) ওই হাদিসটি মূলত আরবদের ফলফলাদি, বিশেষত খেজুর নিয়ে।
হাদিস সম্পর্কিত বিশ্লেষকরা বলছেন, আরবি পঞ্জিকায় অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি শীত শুরু হয়। ওই সময়ে সুরাইয়া নামের এই নক্ষত্রপুঞ্জ সন্ধ্যার পর উদয় হতে থাকে। রাত গভীর হলে এই তারা খুব সহজে দেখা যায়। এভাবে ধীরে ধীরে সূর্য তার উদয়স্থল পরিবর্তন করে উত্তর গোলার্ধের দিকে সরতে থাকে, ফলে গাছে গাছে অংকুরোদ্গম হতে থাকে। আর ভাইরাসের সংক্রমণও বাড়তে থাকে।
মে মাসের ১২ তারিখের দিকে সুরাইয়ার উদয় হয় ফজরের পর। তখন আরবে খুব গরম দেখা যায়।। উত্তর ও দক্ষিণ গোলার্ধে শুরু হয় উষ্ণতার আবহ। ফলে পরিবেশ হয়ে ওঠে অনেকটা ভাইরাস মুক্ত। যা প্রত্যেক বছরেই হয়ে থাকে। এই হাদিসে সেটাই বোঝানো হয়েছে।
কিন্তু রাসূল (সা.) মে মাসে সুরাইয়ার উদয়কে ফসল সুন্দর হবার ক্ষণ হিসেবে নির্ধারণ করেছেন। ওই সময় খেজুর বিক্রির জন্য ভাল, কারণ খেজুরে কোন ব্যাধি ও শষ্যে কোন পোকা থাকে না।
ইসলামী গবেষকরা বলেন, মূলত মে মাসে ফজরের আগে সুরাইয়া তারকা উঠবে এ হাদিস আরব দেশের সঙ্গে সম্পর্কিত, তাদের ফলফলাদি রোগব্যাধি মুক্ত হওয়ার সঙ্গে সম্পর্কিত। এর সঙ্গে আমাদের কোন সম্পর্ক নেই। কিন্তু এর সঙ্গে যারা করোনাভাইরাস জুড়ে দিয়েছেন তারা পুরোপুরি মিথ্যাচার করছেন।
তারা বলেন, সব মুহাদ্দিসই বলেছেন, এ হাদিসটি ফলফলাদির সঙ্গে সম্পর্কিত। এটাকে করোনা বা মানুষের রোগব্যাধির সঙ্গে যুক্ত করলে তা শিরক হয়ে যাবে। সুতরাং এ ধরণের মিথ্যাচার থেকে আমাদের বিরত থাকা উচিত।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

stay home stay safe
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop