মহানগর সময় একলা চলো নীতিতে মাঠে আ. লীগ-বিএনপি

১৬-০৩-২০২০, ১০:২৬

কমল দে

fb tw
জোট-মহাজোট সমীকরণের বাইরে গিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অনেকটা একলা চলো নীতিতে মাঠে নেমেছে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি। যথাযথ মূল্যায়ন না হওয়ায় জোটের শরীকরা যেমন নির্বাচনের প্রচারণায় আসছে না, তেমনি বড় দলগুলোও মনে করছে স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে শরিকদের তেমন প্রয়োজন নেই।
সহজ রাজনৈতিক সমীকরণেই চলছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদের প্রচারণা। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীর সঙ্গে থাকছেন নগর আওয়ামী লীগের নেতারা। আর ধানের শীষের প্রার্থী ডাক্তার শাহদাত হোসেনের সঙ্গে থাকছেন স্থানীয় নেতাদের পাশাপাশি বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা। অথচ জাতীয় রাজনীতিতে ১৪ দলীয় জোট ছাড়াও মহাজোটের প্রধান শরিক আওয়ামী লীগ। আর ২০ দলীয় জোটের নেতৃত্বে রয়েছে বিএনপি। জোট কিংবা সহাজোটের শরিকদের কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না নির্বাচনী প্রচারণায়।
বিএনপি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দলীয়ভাবে কাজ না করলেও ব্যক্তিগত পর্যায়ে অনেকে কাজ করছে। 
আওয়ামী লীগ নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান মোসলেম উদ্দিন আহমেদ এমপি বলেন, যে সমস্ত দল রয়েছে তাদের সঙ্গে আমাদের কথা বার্তা হয়েছে। আগামী দিন তারাও মাঠে নেমে যাবে।  
মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টি এবারের নির্বাচনে প্রার্থীতা ঘোষণা করলেও কিন্তু শেষ মুহূর্তে এসে প্রত্যাহার করে নেয়। তবে প্রধান শরীক আওয়ামী লীগের আগ্রহ না থাকায় জাতীয় পার্টি এখনো মহাজোটের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় নামেন নি। এক্ষেত্রে জাতীয় পার্টির দাবি, নির্বাচনের মাঠে তাদের ডাকা হচ্ছে না। অবশ্য বিগত সিটি করেপারেশন নির্বাচনে জোট এবং মহাজোটের সমর্থন পেয়েছিলেন মেয়র প্রার্থীরা।
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সোলেমান আলম শেঠ বলেন, আমাদের যদি না ডাকে প্রয়োজন না মনে করে প্রার্থীরা আমরা কেনো তাদের পক্ষে কাজ করব। 
ভোটের মাঠে ছোট রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি বড়দলগুলোর অনীহা যেমন রয়েছে, তেমনি ছোটদলগুলোও স্বার্থের জন্য বড়দলগুলোর লেজুড়বৃত্তি করায় এ ধরনের ভারসাম্যহীন রাজনীতি চলছে বলে মনে করছেন এ বিশ্লেষক।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনৈতিক বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. সিদ্দিক আহমেদ চৌধুরী বলেন, স্বাধীনভাবে তারা কাজ করতে পারে। তা না করে জোট করার জন্য মরিয়া হয়ে যায়।
এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে সাত জন প্রার্থী থাকলেও মূলত প্রতিদ্বন্ধিতা হবে আওয়ামী লীগের রেজাউল করিম চৌধুরী এবং বিএনপির ডাক্তার শাহদাত হোসেনের মধ্যে। তবে কাউন্সিলর পদগুলোতে আওয়ামী লীগের মূল প্রার্থীদের সঙ্গে বিদ্রোহী প্রার্থীদের লড়াই হতে যাচ্ছে।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop