স্বাস্থ্য ইঁদুর-বানর সঙ্কটে করোনা গবেষকরা

১২-০৩-২০২০, ১১:০২

স্বাস্থ্য সময় ডেস্ক

fb tw
ইঁদুর-বানর সঙ্কটে করোনা গবেষকরা
সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় পরীক্ষা-নিরীক্ষার করার জন্য ল্যাবে প্রাণীর চাহিদা বেড়ে গেছে। যখন কোনো ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে তখন শুধু মানব জাতিই ক্ষতিগ্রস্ত হয় না সংকটে পড়ে গোটা প্রাণীকূল।
বিশেষ করে ল্যাব পরীক্ষায় যেসব প্রাণী পরীক্ষায় ব্যবহৃত হয় সেগুলোর চাহিদাও বেড়ে যায়। তখন ওই সব প্রাণী ঝুঁকির মুখে পড়ে। যেমন ইঁদুর, বানর ও ফেরেট জাতীয় প্রাণী।
ইঁদুর, বানর ও ফেরেট জাতীয় প্রাণী বিশ্বের বেশিরভাগ ল্যাবে এ প্রাণীগুলোর চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এমন সংকট দেখা দিয়েছে।
যেহেতু ল্যাব প্রাণীর ডিএনএ মানুষের মতো, এ কারণে  বেশিরভাগ প্রতিষেধক তৈরির পর তা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কার্যকর কিনা তা জানার জন্য এ ধরনের প্রাণীগুলোর ওপর পরীক্ষা চালানো হয়। অনেকবার পরীক্ষা করার প্রয়োজন হওয়ায় ল্যাবগুলো বারবার প্রাণীর অর্ডার দিতে বাধ্য হয়।
বিখ্যাত সাময়িকী ন্যাচার-এর ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, চলমান করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরির জন্য পরীক্ষাগারগুলিতে বর্তমানে প্রচুর পরিমাণে প্রাণীর প্রয়োজন।  
করেনাভাইরাস নিয়ে গবেষণা করা যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিন-ম্যাডিসন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজিস্ট ডেভিড ওকনর বলেছেন, এ পরীক্ষার জন্য কেবলমাত্র একটি প্রাণীর মডেল নয়, একাধিক প্রাণীর প্রয়োজন পড়ে।
ডেভিড ওকনরের মতো একই কথা বলছেন অন্য দেশের বিজ্ঞানীরাও। এ কারণে তারা পরীক্ষার জন্য কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে জন্ম দেওয়া বিশেষ ধরনের ইঁদুর দাবি করছেন।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাইন উপকূলের জ্যাকসন ল্যাবরেটরি কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে ইঁদুর জন্ম দেয়ায় পরিচিত হওয়ায় তাদের কাছেই ল্যাব পরীক্ষার জন্য কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে জন্ম দেয়া ইঁদুর চাওয়া হচ্ছে।
ল্যাবটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এরইমধ্যে গোটা বিশ্ব থেকে তারা ৫০ টির বেশি অনুরোধ পেয়েছেন, যেখানে ৩ হাজারেরও বেশি কৃত্রিম উপায়ে জন্ম দেয়া ইঁদুর চাওয়া হয়েছে। গবেষকরা বলছেন, সাধারণ ইঁদুরগুলি সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধী। এ কারণে ল্যাবের পরীক্ষার জন্য কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে ইঁদুর জন্ম দেয়ার জন্য আরও বেশি কেন্দ্র তৈরি প্রয়োজন।
এদিকে চীনের গবেষকদের একটি দল এরই মধ্যে করেনাভাইরাস নিয়ে কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে জন্ম নেওয়া ইঁদুরের ওপর পরীক্ষা শুরু করেছেন। তারা বলছেন, এটা এমন একটি নিখুঁত প্রাণী যা তাদের তৈরি প্রতিষেধকগুলোতে সঠিকভাবে প্রতিক্রিয়া দেখায়। তারা আশা করছেন, এ প্রাণীর ওপর পরীক্ষার মাধ্যমে তারা সঠিক প্রতিষেধক তৈরি করতে পারবেন।
গোটা বিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে ১ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। আর মারা গেছেন ৪ হাজারের বেশি মানুষ। কিন্তু এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা এ ভাইরাসের প্রতিষেধক তৈরি করতে পারেননি।
এদিকে, করোনাভাইরাসকে মহামারী ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সংস্থাটি এই মহামারীকে প্যানডেমিক হিসেবে বর্ণনা করেছে। যে রোগ একই সময়ে বিভিন্ন দেশে দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়ে তাকে প্যানডেমিক বলা হয়। বুধবার (১১ মার্চ) বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘোষণা আসে।
 

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop