মহানগর সময় সরছেনই না আ. লীগের বিদ্রোহী কাউন্সিলর প্রার্থীরা

০৭-০৩-২০২০, ১০:১০

কমল দে

fb tw
শেষ মুহূর্তে নাটকীয় কিছু না ঘটলে নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডেই বিদ্রোহী প্রার্থীদের মোকাবেলা করে মাঠে থাকতে হবে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের। কোনোভাবেই তাদের নির্বাচনী মাঠ থেকে সরানো যাচ্ছে না। বিদ্রোহ দমনে ব্যর্থ হয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন পর্যন্ত। তবে নগর আওয়ামী লীগের নেতাদের ইন্ধনে বিদ্রোহী প্রার্থীরা অনড় রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় আছে আর মাত্র একদিন। কিন্তু এর মধ্যে প্রত্যাহারের আবেদন জমা পড়েছে মাত্র দুটি। অথচ নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডের প্রতিটিতেই আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন একাধিক। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদেও বিদ্রোহ থেকে বাদ পড়েনি। বিদ্রোহী প্রার্থীদের বাগে আনতে বৈঠকে বসেছিলেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। কিন্তু কোনো ইতিবাচক সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয় বৈঠক। অধিকাংশ বিদ্রোহী প্রার্থীই নির্বাচনে অংশ নিতে অনড় অবস্থানে রয়েছেন।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কাউন্সিলর মোহাম্মদ মহসিন বলেন, সাধারণ মানুষের সমর্থন নিয়ে আমি নির্বাচন করছি।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এফ কবির মানিক বলেন, গত ১৪ বছর ধরে আমি কাউন্সিলর। জনগণের দাবি আমি যেন ওদের সঙ্গে মোনাফিকি না করি।
এবারই প্রথম ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে দল থেকে মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। যেখানে বাদ পড়েছেন ১৩ জন পুরুষ এবং ৫ জন নারী কাউন্সিলর। এর মধ্যে ১৭ জনই আবার প্রার্থী হয়েছেন। এই অবস্থায় কাউন্সিলর পদের নির্বাচন উন্মুক্ত করে দেয়ার দাবি তাদের।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এম এ নাসের বলেন, সবাই যেন নির্বাচনে অংশ নিতে পারে এবং জনগণ যেন ইচ্ছা মতো ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে।
আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী তারেক সোলায়মান সেলিম বলেন, এই নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি অনেক বাড়বে।
অভিযোগ উঠেছে, নগর আওয়ামী লীগের একটি অংশ বিদ্রোহী প্রার্থীদের মাঠে থাকার জন্য নানাভাবে ইন্ধন দিচ্ছে। বর্তমানে যারা মনোনয়ন পেয়েছেন তাদের অধিকাংশ প্রয়াত মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী। আর বঞ্চিতরা নগর রাজনীতিতে বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছিরের অনুসারী হিসাবে পরিচিত। আ জ ম নাছিরের অধিকাংশ অনুসারীরা এখন বিদ্রোহী হিসেবে মাঠে রয়েছেন।
চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন বলেন, নেতৃর স্বাক্ষরের পর অন্যলোক আনা সম্ভব নয়।
এদিকে ৮ মার্চ সাংগঠনিক কাজে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের চট্টগ্রাম আসার কথা রয়েছে। শেষ পর্যন্ত ওবায়দুল কাদেরের হস্তক্ষেপে বিদ্রোহ প্রশমন হতে পারে বলে আশা স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের। আর এদিনই বিকেল ৫টায় মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময়।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop