স্বাস্থ্য বিশ্বজুড়ে করোনা ছড়ানোর সময় আসেনি: ডব্লিউএইচও

০৫-০২-২০২০, ১৬:১১

স্বাস্থ্য সময় ডেস্ক

fb tw
বিশ্বজুড়ে করোনা ছড়ানোর সময় আসেনি: ডব্লিউএইচও
করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত গোটা বিশ্ব। এই আতঙ্কের সুযোগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমজুড়ে ছড়াচ্ছে অনেক ভুল তথ্য ও গুজব। এ সব বন্ধে গুগল এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে নিয়ে অনলাইনে যৌথভাবে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।
এদিকে, এখন পর্যন্ত ২৪টির বেশি দেশে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেলেও বিশ্বব্যাপী এটি ছড়িয়ে পড়ার ঘোষণা দেয়ার সময় আসেনি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। তবে আশঙ্কাজনকভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা।
সাধারণ সর্দি-কাশি ও জ্বরের মতো লক্ষণ থাকায় করোনাভাইরাসকে আলাদাভাবে শনাক্ত করা অনেকটাই কঠিন। এ কারণে জ্বর থাকলেই আতঙ্ক দেখা দিচ্ছে সাধারণ মানুষের মাঝে। এ সুযোগে ভুল তথ্য ছড়াচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সচেতনতার চেয়ে ভুল তথ্যের কারণে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে মানুষের মাঝে।
গুজব রোধ ও সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে গুগল ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে নিয়ে যৌথভাবে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ল্যাব থেকে ভাইরাসের উৎপত্তি, প্রতিষেধক আবিষ্কার, আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা অতিরঞ্জিত করাসহ বিভিন্ন গুজব ও মাস্কের সঠিক ব্যবহারের ওপর আলোকপাত করার কথা জানায় সংস্থাটি।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বৈশ্বিক সংক্রামক প্রতিরোধ ব্যবস্থাপনার প্রধান ড. সিলভি ব্রিয়ান্ড বলেন, অনেকেই মনে করছে করোনাভাইরাসের জীবাণু বাতাসে ছড়িয়ে থাকে। আসলে ব্যাপারটা তা নয়। মানুষের সরাসরি ও কাছাকাছি স্পর্শ এবং পর্যাপ্ত পরিমাণ জীবানু ফুসফুসে প্রবেশ করলেই এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। সুস্থ মানুষের চেয়ে অসুস্থ মানুষের মাস্ক ব্যবহার করা জরুরি। ভাইরাসটি নিয়ে বিস্তারিত জানানোর পাশাপাশি ভাইরাস প্রতিরোধে যে সব পদক্ষেপ নিতে হবে এ সম্পর্কে আমরা জানাবো।
বর্তমানে নভেল করোনাভাইরাস নামে পরিচিত ভাইরাসটির নামকরণের প্রয়োজনীয়তার কথাও উল্লেখ করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। একইসঙ্গে এখনো এই ভাইরাসটি বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে না পড়ায় 'প্যানডেমিক' ঘোষণা দেয়ার সময় আসেনি বলে জানায় সংস্থাটি।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এ বক্তব্যের ব্যাপারে কোন মন্তব্য না করলেও আশঙ্কাজনকভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন লন্ডনের এ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ।
লন্ডন স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিনের অধ্যাপক ডেভিড হেইম্যান বলেন, চীনে প্রতিনিয়ত আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও দেশটির বাইরে ঠিক কত সংখ্যক মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে এটিই এখন দেখার বিষয়। যেহেতু এই রোগের প্রতিষেধক এখনো আবিষ্কার হয়নি তাই সচেতনতার দিকে সবাইকে গুরুত্ব দিতে হবে।
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে বারবার সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। একইসঙ্গে নাক, কান ও চোখে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকারও পরামর্শ তাদের।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop