মহানগর সময় ‘দেড় লাখ টাকায় শ্রমিক পাঠানো হবে মালয়েশিয়ায়’

০৫-০১-২০২০, ২০:০৮

হরিপদ সাহা

fb tw
কর্মী পাঠাতে অনিয়ম করলে কোনো রিক্রুটিং এজেন্সিকে ছাড় দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ার করে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী বলেন, সিন্ডিকেট আমাদের সমস্যা না। আমাদের লক্ষ্য স্বল্প খরচে (এক লাখ ৬০ হাজার টাকায়) মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো।
এছাড়া মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী জানান, সৌদি সরকারের সাথে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে নিজেদের কঠোর অবস্থান তুলে ধরায় নির্যাতিত হয়ে নারী কর্মী ফেরতের প্রবণতা কমেছে।
দেশের অর্থনীতিতে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে ১ কোটির বেশি প্রবাসী শ্রমিকের পাঠানো অর্থ। বিদায়ী বছরে ১৬ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধিতে মোট রেমিটেন্স ১৮ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। ২০১৯ সালে ৭ লাখ ১ হাজার কর্মীর বৈদেশিক কর্মসংস্থান হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৫০ হাজার জন বেশি। সবচেয়ে বেশি কর্মী পাঠানো ৫ জেলা ছিল কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চট্টগ্রাম, টাঙ্গাইল ও ঢাকা । মোট কর্মীর মধ্যে ৪৪ শতাংশ দক্ষ, ২০ শতাংশ আধাদক্ষ এবং বাকিরা অদক্ষ হিসেবে বিদেশে গেছেন।
রোববার (০৫ জানুয়ারি) প্রবাসীকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় দক্ষ কর্মী পাঠাতে নানমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।
বিদেশে কর্মী পাঠাতে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করে প্রতারণা প্রতিরোধে টাস্কফোর্স কাজ করছে বলে জানানো হয়। বলা হয় গত বছর অনিয়মে অভিযুক্ত ২ শতাধিক রিক্রুটিং এজেন্সি থেকে ক্ষতিপূরণ আদায় করা হয়েছে, ১ টির লাইসেন্স বাতিল এবং স্থগিত করা হয়েছে ২টির ।
প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, আমাদের বিদেশগামী কর্মীর সংখ্যা কমেছে এটা ঠিক। কিন্তু সারাবিশ্বের চাহিদারও পরিবর্তন এসেছে। তা হলো দক্ষকর্মীর চাহিদা। এটা না দিতে পারলে আমরা ফেল করবো। অনেক পদক্ষেপ নিয়েছি দক্ষ শ্রমিক করার। আমরা লাখ লাখ কর্মীর কথা বলে থাকি। কিন্তু দক্ষ কতজন পাঠাচ্ছি, মাত্র হাজার হাজার। এখানে আমাদের আমুল পরিবর্তন আনতে হবে। দক্ষ শ্রমিক বাজারে এলে আমাদের বাজারও বাড়বে। এজন্য আমাদের ৪৯২টি উপজেলার মধ্যে ১৬৪টিতে টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টার (টিটিসি) হচ্ছে। আমাদের লক্ষ্য ও নির্বাচনী ইশতেহারে ছিলো প্রতি উপজেলা থেকে এক হাজার দক্ষকর্মী পাঠাবো। কিন্তু আমাদের সব উপজেলাতে এখনও টিটিসি স্থাপন করতে পারিনি। এজন্য আমরা বাকি সবকয়টি উপজেলার জন্য একটি প্রকল্প তৈরি করে জমা দেওয়া হবে টিটিসি নির্মাণের জন্য।
এসময় তিনি মালয়েশিয়া বাজার নিয়ে বলেন, এই বাজারটি অনেকদিন ধরে খোলা হচ্ছে না। আমি চাই না আগের মতো পাঁচ থেকে ছয় লাখ টাকা খরচ করে সেখানে যাক। আর জঙ্গলে লুকিয়ে থাকুক। আমরা সে ধরনের কোনো চুক্তি করিনি। আমাদের লক্ষ্য হলো সরকার যে রেট নির্ধারণ করে দেবে তা দিয়েই যেতে হবে। এই সরকার আসার পর মালয়েশিয়ার বাজার নিয়ে যে রিক্রুটিং এজেন্সিগুলো কোনো ছোট অনিয়ম করলেও আমরা কাউকে ছাড় দিতে রাজি না। অন্যায়কে আমরা প্রশ্রয় দেবো না। সিন্ডিকেট আমাদের সমস্যা না। আমাদের লক্ষ্য স্বল্প খরচে এক লাখ ৬০ হাজার টাকায় মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো।
নির্বাচনী ইশেতহার অনুযায়ী, প্রতি উপজেলা থেকে বছরে কমপক্ষে ১ হাজার কর্মী বিদেশে পাঠানোর প্রতিশ্রুতি পূরণ এবং নতুন নতুন শ্রমবাজার তৈরিতে কাজ চলছে বলে জানান মন্ত্রী।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

stay home stay safe
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop