মুক্তকথা ইউরোপ-আমেরিকায় ভালো চাকরি পেতে হলে...

২৯-১২-২০১৯, ২১:৫৮

সময় সংবাদ

fb tw
ইউরোপ-আমেরিকায় ভালো চাকরি পেতে হলে...
বাংলাদেশে বর্তমানে বিদেশ থেকে আসা রেমিটেন্সের সূচক অন্য সব সূচক থেকে উর্ধ্বে। বিপুল পরিমাণ প্রবাসীর গামের ফসল রেমিটেন্স। তবে যারা এই রেমিটেন্স উপার্জন করছেন তারা শ্রমের তুলনায় সুফল পান কম। প্রত্যাশা অনুযায়ী বিদেশে কাজ না পাওয়ায় কম মজুরীতে কাজ করতে হয়।
বিদেশে প্রবাসীরা কেন তুলনামূলক বেশি বেতনের চাকরিতে কাজ পান না বা প্রত্যাশার চেয়ে কম বেতনে চাকরি করতে হয় তা নিয়ে নানা মত আছে। তবে ভাইভা বা মৌখিক পরীক্ষায় নিজেকে উপস্থাপন করতে না পারায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই সমস্যার সৃষ্টি হয় বলে মত অভিজ্ঞদের।
এক্ষেত্রে প্রথম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে SWOT-analys। SWOT মানে Strengths, Weaknesses, Opportunities, এবং Threats। এই বিষয়গুলো সিভিতে ভালোভাবে তুলে ধরা গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ।
চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রে নিজের সক্ষমতাগুলো যেমন তুলে ধরতে হবে, তেমনি নিজের দুর্বলতাগুলোও জানতে হবে। দুর্বলতার মধ্যে ভাষা না জানা অন্যতম সমস্যা। তবে ভাষা না জানা নিয়ে খুব উদ্বীগ্ন হওয়ার প্রয়োজন নেই।
আপনি ভাষা জানুন বা না জানুন তার চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আপনার দায়িত্ব পালন করতে পারা। যেকোনো সমস্যা চিহ্নিত করতে ও সমাধান করতে পারা।
সমস্যা নিজের দেশেই হোক বা অন্য দেশেই হোক, তা সমাধান করতে হলে সেটিকে সঠিকভাবে চিহ্নিত করার দক্ষতা অর্জন করতে হবে। কারণ সমস্যা কী তা যদি সনাক্ত করা যায় তখন সমাধান খুঁজে বের করা সম্ভব হয়। কিন্তু সমস্যাই যদি চিহ্নিত করা না যায় তাহলে সমাধান কখনোই সম্ভব হবে না।
দেশে যদি কোনো কাজে দক্ষ হওয়া যায় সেটি বিদেশেও কাজে লাগে। কাজ সবই প্রায় একই ধরণের। কিন্তু দেশে আমরা কাজ করতে অলসতা করার ফলে দক্ষতা বাড়ে না। হঠাৎ করে বিদেশে গিয়ে কাজ শুরু করলে অভ্যস্ত না হওয়ায় হোচট খেতে হয়।
বিদেশে গিয়ে সাধারণ যেসব সমস্যায় পড়তে হয় তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে পরিবেশ-পরিস্থিতি বুঝতে পারা। এর জন্য একটু সময় লেগে যায়। তবে যদি ভালো কাজ জানা থাকে এবং নিজেকে উপস্থাপন করতে পারেন তাহলে পরিবেশ যাই হোক আপনার মূল্যয়ন হবে।
দক্ষতার ক্ষেত্রে দেশ থেকে প্রশিক্ষণ নেয়াই উপযুক্ত। বাংলাদেশে নানা বিষয় প্রশিক্ষণ নেয়ার সুযোগ রয়েছে। প্রশিক্ষণ নেয়ার পাশাপাশি সেগুলো চর্চায় রাখা দরকার। তাছাড়া একটি বিষয় শিখলে সেটি আরও ভালোভাবে করতে জানা বা নতুন কিছু শেখার মানসিকতা ও আগ্রহ থাকতে হবে।
চাকরি পাওয়ার জন্য আমাদের সাধারণত ভাইভা বোর্ডে যারা থাকেন তাদের সুনজর পাওয়া করুণা পাওয়ার একটা মানসিকতা কাজ করে। কিন্তু এটি একেবারেই করা উচিৎ নয়। বরং নিজেকে ভালোভাবে উপস্থাপন করা, ভদ্রভাবে প্রশ্নের উত্তর দেয়া, না জানা থাকলে সরল স্বীকারোক্তি দেয়া ভালো। অযথা ভুল বললে বা  গোজামিল দেয়ার চেষ্টা করলে বরং তারা বিরক্ত হয় এবং খারাপ ধারণা তৈরি হয়।
করুণা পাওয়ার জন্য অনেকে বলে থাকেন, আমি স্টুডেন্ট, গরি দেশ থেকে এসেছি, পরিবার খুব দরিদ্র, আমার একটা কাজ খুব দরকার বা চাকরি না হলে আমি খুব সমস্যায় পড়বো; এ জাতীয় কথা ভাইভা বোর্ডে একেবারেই এড়িয়ে যাওয়া উচিৎ। বরং কাজের জন্য তারা ভাইভা নিচ্ছে সেই কাজটি আপনি কত ভালোভাবে করতে পারেন তা বলুন।
অনেকে বিদেশ থেকে আসার কারণে কেউ চাকরি দিচ্ছে না বলে মন্তব্য করে বসেন। আবার কেউ আগের প্রতিষ্ঠানের বদনাম করেন বা আগের বসের বদনাম করেন। বিষয়গুলি খুবই নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা হয়। কেন চাকরি পরিবর্তন করতে চান এমন প্রশ্নে কোনোভাবেই আগের প্রতিষ্ঠান বা বসকে খারাপ বলা যাবে না। বরং নতুন কিছু করা বা শেখার জন্য নতুন চাকরি চাই; এমনটিই বলা ভালো।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop