মুক্তকথা শেখ হাসিনাকে একবার সামনে থেকে আশীর্বাদ করতে চাই

২১-১২-২০১৯, ০৪:৩১

সময় সংবাদ

fb tw
শেখ হাসিনাকে একবার সামনে থেকে আশীর্বাদ করতে চাই
ইসাহক আলী মাস্টার, বয়স ১০০ বছর ছাড়িয়েছে। তাতে কি এখনো তিনি একজন নিবেদিতপ্রাণ আওয়ামী লীগ সদস্য। যে কোনো দলীয় কর্মসূচিতে এই বয়সেও উপস্থিত হতে ভুল হয় না তার। তার কর্মস্পৃহা আর দলের প্রতি একাগ্রতা হার মানায় যেকোনো তরুণ কর্মীর স্পৃহাকেও।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে মহান মুক্তিযুদ্ধে কুষ্টিয়ায় যে ক’জন সংগঠক ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম তিনি অথচ কোনোদিন তিনি মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি চাননি। ছিলেন আব্দালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ও টানা ৪০ বছর সভাপতি এবং আব্দালপুর ইউনিয়নের রেকর্ড ৫ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান। টানা ৪০ বছর নিরলসভাবে খেটেছেন নিজ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করতে।
একাত্তর সালের পূর্বে বঙ্গবন্ধু যখন কুষ্টিয়া আসেন তখন হরিনারায়ণপুর বাজারে অনুষ্ঠিত জনসভায় মানপত্র পাঠ করেছিলেন তিনি। এছাড়াও তৎকালীন কৃষীমন্ত্রী আব্দুর রব সেরনিয়াবাত কুষ্টিয়া সফরে আসলে ইসহাক মাস্টারের নেতৃত্বেই অনুষ্ঠিত হয় বিভিন্ন অনুষ্ঠান।
গণতন্ত্রের টুটি চেপে ধরে তৎকালীন সৈরশাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ যখন দেশজুড়ে চালাচ্ছিলেন সৈরশাসন তখনকার সৈরশাসন বিরোধী তীব্র আন্দোলনের সময় আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বুকে বোম বেঁধে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কুষ্টিয়া আসেন তিনি।
এছাড়াও হ্যাঁ-না ভোটের সময় নিজ ইউনিয়ন কেন্দ্রে না ভোটকে জিতিয়ে দেয়ায় তার অবদান ছিল অনস্বীকার্য যার ফলস্বরুপ সেনাবাহিনী তাকে যশোর ক্যান্টনমেন্টে বেশ কিছুদিন আটকে রেখে অমানুষিক নির্যাতন চালায় এবং পরবর্তীতে মৃতপ্রায় অবস্থায় মুক্তি দেয় যার ক্ষতচিহ্ন তিনি আজো বয়ে বেড়াচ্ছেন।
বর্তমানে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের একজন সম্মানিত উপদেষ্টা তিনি। দলীয় কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সমাজসেবায়ও রয়েছে তার অপরিসীম অবদান।
আব্দালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতার সুবাদে নিজ ইউনিয়নে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেয়ার ব্রত নিয়ে গড়ে তুলেছেন আব্দালপুর হাইস্কুল এবং খাতের আলী ডিগ্রি কলেজ। দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেরই প্রতিষ্ঠাতা ও আব্দালপুর হাইস্কুলের আজীবন সভাপতি এবং খাতের আলী ডিগ্রি কলেজের সাবেক সভাপতি তিনি। যে দু’টি প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষার আলোয় শিক্ষিত হয়ে উদ্ভাসিত আজ আব্দালপুর তথা আশপাশের কয়েকটি ইউনিয়নের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।
নিজ ইউনিয়ন আব্দালপুরতো বটেই পুরো কুষ্টিয়া জেলাতেই বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানার প্রতিষ্ঠাতা এ মহান ব্যক্তি।
এ ছাড়াও নিজ গ্রাম ও ইউনিয়নে রাস্তা-ঘাট, ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণে তার রয়েছে অপরিমেয় অবদান। নিজের অসমাপ্ত কাজ শেষ করে যাওয়ার গুরুভার তুলে দিয়েছেন নিজেরই সুপুত্র আব্দালপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান আলী হায়দার স্বপনের কাঁধে।
তার ছোট ছেলে আরেক মুজিব আদর্শে উজ্জীবিত সৈনিক আলী মর্তুজা সিদ্দিকী খসরু যিনি কলেজ জীবন থেকেই ছাত্ররাজনীতির সাথে জড়িত। কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় তার নেতৃত্বেই শিবিরমুক্ত হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল। তিনি কুষ্টিয়া জেলা ছাত্রলীগের বিগত কমিটির সুযোগ্য সভাপতি ছিলেন এবং বর্তমানে আওয়ামী রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত।
তার সুযোগ্য নাতি জুয়েল রানা হালিম ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদকের গুরুদায়িত্ব পালন করেছেন এবং তার আরেক নাতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিগত কমিটির সহ-সম্পাদক ছিলেন এবং বর্তমানে একজন সক্রিয় ছাত্রলীগ কর্মী।
পরিশেষে এ রকম একজন মহান এবং বীর আওয়ামী সেনাকে নিয়ে কিছু লিখতে পারায় নিজেকে ধন্য মনে করছি। প্রিয় ইসহাক আলী চাচার প্রতি রইলো সশ্রদ্ধ স্যালুট!!
জয় বাংলা,জয় বঙ্গবন্ধু।
লেখক : লুতফুল্লাহিল পল্লব।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop