মহানগর সময় স্ত্রীর সঙ্গে বিশেষ সময় কাটানোর আবদার, বন্ধুকে খুন

২৮-০৮-২০১৯, ২০:০৪

কমল দে

fb tw
স্ত্রীর সঙ্গে বিশেষ সময় কাটানোর আবদার, বন্ধুকে খুন
চট্টগ্রামের চকবাজারে স্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি এবং বিশেষভাবে সময় কাটানোর আবদার করায় ক্ষিপ্ত বন্ধুর হাতে প্রাণ দিয়েছে ফাহিম নামে এক তরুণ। কোরবানীর পশুর চামড়া ছড়ানোর ধারালো ছুরি দিয়ে গলা এবং হাত কাটার পর বুকে অন্তত ২০ বার ছুরি দিয়ে আঘাত করেছে ক্ষিপ্ত আরিফ। এরপর পালিয়ে চলে গিয়েছিলো ভোলায়। এমনকি পুলিশ থেকে বাঁচার জন্য কোনো মোবাইল ফোন পর্যন্ত ব্যবহার করেনি সে। তারপরেও বাঁচতে পারেনি পুলিশের হাত থেকে। হত্যাকাণ্ডের সাত দিন পর হত্যাকারী আরিফকে ভোলা থেকে গ্রেফতারের পর বের হয়ে এসেছে এ হত্যকাণ্ডের রহস্য। 
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের দক্ষিণ জোনের উপ কমিশনার এস এম মেহেদী হাসান জানান, মঙ্গলবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ভোলা থেকে আরিফকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর আরিফ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করে পুলিশকে জানিয়েছে, চকবাজারের একটি বাসায় তারা প্রায়ই নেশা করতো। এর মধ্যে একদিন ফাহিম তার বন্ধু আরিফের স্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি করে। এই কটূক্তির প্রতিশোধ হিসাবে ২০ আগষ্ট উপূর্যপরি ছুরিকাঘাতে ফাহিমকে হত্যা করে ভোলা পালিয়ে যায়। পুলিশ ২৩ শে আগষ্ট ফাহিমের গলিত লাশ উদ্ধার করে। পরে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে পুলিশ ভোলায় আরিফের অবস্থান শনাক্ত এবং তাকে গ্রেফতার করে। 
সিএমপি দক্ষিণ জোনের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার আবদুর রউফ ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জানান, এটি ছিলো একটি ক্লু লেস মামলা। ধারালো ছুরি দিয়ে অতিরিক্ত আঘাতের কারণে ফাহিমের শরীর অনেকটা পড়ে গিয়েছিলো। যে কারণে প্রথম পর্যায়ে শনাক্তে কিছুটা বেগ পেতে হয়। শেষ পর্যন্ত তার পরিবার পরনের কাপড়-চোপড় দেখে লাশ শনাক্ত করতে পেরেছে। এরপরই পুলিশ ক্লু লেস এ মামলার অনুসন্ধানে নামে। 
হত্যাকাণ্ডের কারণ সম্পর্কে বলতে গিয়ে ডিসি মেহেদী হাসান জানান, নিহত ফাহিম এবং হত্যাকারী আরিফসহ আরো বেশক’জন চকবাজার গনি কনট্রাক্টরের বাড়ি এলাকার একটি পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকিতে বসে ইয়াবা সেবন করতো। এসময় ফাহিম জানতে পারে আরিফ তার নিজ চাচীকেই বিয়ে করেছে। এটা জানার পর থেকেই ফাহিম নানাভাবে স্ত্রীকে জড়িয়ে আরিফকে উত্ত্যক্ত করতে থাকে। এমন কি এক পর্যায়ে আরিফের স্ত্রীর সাথে বিশেষভাবে সময় কাটানোর জন্য ফাহিম আবদার করে। তাৎক্ষণিকভাবে আরিফ কিছু না বললেও এর প্রতিশোধ নেয়ার উপায় খুঁজতে থাকে। 
অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার আবদুর রউফ জানান, কোরবানীর পর আরিফ চামড়া ছড়ানোর ছোট আকৃতির ধারালো ছুরিটি নিজের কাছে এনে রাখে। ২০ আগষ্ট অপরিচিত দু’জনের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নেশা করার কথা বলে ফাহিমকে ডেকে আনে। এরপর ওই পরিত্যক্ত পানির ট্যাংকির পাশে নিয়ে গিয়ে অতর্কিতভাবে ধারালো ছুরি দিয়ে ফাহিমের গলা এবং হাতে আঘাত করে। ছুরির আঘাতে ফাহিম মাটিতে পড়ে গেলে বুকে অন্তত ২০ বাচার ছুরি দিয়ে আঘাত করে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে।
এরপর ঠান্ডা মাথায় বাসায় গিয়ে ছুরি এবং পরনের কাপড়-চোপড় পানি দিয়ে ধুয়ে ভোলা পালিয়ে যায়। অবশ্য ভোলা যাওয়ার আগে কৌশলে স্ত্রীকে তার এক নিকটাত্মীয়ের বাসায় রেখে গিয়েছিলো। পরবর্তীতে পুলিশ ওই দুই অপরিচিত মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে হত্যাকারী হিসাবে আরিফকে শনাক্ত করে। ভোলা থেকে গ্রেফতারের পর তার বাসা থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করে। তবে হত্যার সময় পরিহিত কাপড়-চোপড় ড্রেনে ফেলে দিয়েছিলো তার স্ত্রী। এ ঘটনায় নিহত ফাহিমের বাবা আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছিলো।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop