সাক্ষাৎকার অচ্ছুত বিলুপ্তপ্রায় বাগদি সম্প্রদায়ের করুণ জীবনাখ্যান

২৪-১০-২০১৮, ১১:৩৯

সাব্বির সামি

fb tw
                             (তথ্য ও ছবি: মিথুন মাহমুদ)
বুনো বা বাগদি সম্প্রদায়। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোতে দেখা যায় এ সম্প্রদায়ের মানুষদের। সমাজে অচ্ছুত বলে পরিচিত এ সম্প্রদায়ের মানুষ মাছ-কাঁকড়া-কুইচ্যা-কচ্ছপ-খরগোশ শিকার করে,ইঁদুরের গর্ত থেকে ধান কুড়িয়ে চলে তাদের জীবন। বর্তমানে বিভিন্ন কারণে চরম অস্তিত্ব সংকটে এ অবহেলিত সম্প্রদায়। বাগদি একটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী। পশ্চিমবঙ্গে ও বাংলাদেশে এদের বাস। তবে এদেশে বসবাসবাসী বাগদীদের নিজস্ব জমি বা বসত ভিটা নেই। অস্তিত্ব সংকট নিয়েও  মাগুরা, রাজবাড়ী, ফরিদপুর, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, নাটোর, খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট এলাকাতেই এখনও কিছু বাগদী জনপদ টিকে আছে। আজ আমরা চুয়াডাঙ্গা জেলার বাগদি সম্প্রদায়ের টিকে থাকার সংগ্রামটি আপনাদের সামনে তুলে ধরবো।
ঐতিহাসিকভাবেই বাগদী জাতি জলাভূমি প্রতিবেশ এলাকায় বসতি গড়ে তুলেছিল। বিল, বাওড়, নদীর কিনার, নালা ও খালের ধারেই জলাভূমি থেকে কুড়িয়ে পাওয়া সহায় সম্পদে গড়ে ওঠা সেই দু:সাহসী স্বনির্ভর বাগদী আখ্যান এখন আর নেই। জীবন ধারণের জন্য বিল-হাওড়ে বা কৃষি খামারে নামবে গেলেই ঘটে বিপত্তি। বিল-বাওড় নদীর ইজারাদার কিম্বা খামারের মালিকের হাতে অনেক সময় হতে হয় শারীরিকভাবে নির্যাতিত।
এককালে বাগদীরাও নিজস্ব সর্বপ্রাণবাদী ধর্ম পালন করতেন কিন্তু বাঙালি হিন্দু সমাজের সাথে বসবাসের ফলে তারাও নিজস্ব ধর্ম থেকে বাধ্য হয়েছেন সনাতন হিন্দুধর্মে আত্তীকরণের। বাঙালি হিন্দু সমাজের কঠোর বর্ণপ্রথা বাগদীদের অচ্ছুত ও নিচুজাত বানিয়ে রেখেছে এখনও। এখনও বাগদীদের সাথে কথিত বর্ণহিন্দুর জলচল নেই।
stay home stay safe
বাগদি সম্প্রদায়ের মানুষকে সাধারণত অন্য সম্প্রদায়ের লোকেরা বুনো নামে চিহ্নিত করে থাকে। তবে বাগদীদের ‘বুনো’ বলাটা বাগদীরা মোটেও সহ্য করতে পারেন না।
বর্তমান সমাজ ব্যবস্থার চাপে হারিয়ে গেলে ভাগদিদের নিজস্ব সংস্কৃতি। মূলত: বাগদী ভাষার চর্চা এখন এক প্রবীণজন ছাড়া নতুন প্রজন্মের ভেতর নেই বললেই চলে। উৎসবের আমেজ মূলত: হেমন্ত ও শীতকালে। আমন ধান কাটার পরই বাগদী সমাজও আপন জাতিগত আচাররীতিতে টানটান হয়ে ওঠে। বাঙালি কৃষকরা মূলত: অগ্রহায়ন থেকে পৌষের প্রথম দিকে বিল এলাকার আমন ধান কেটে ঘরে তুলেন। আমন মওসুমে বিল এলাকার দেশী আমন ধানের শীষ কেটে কেটে ইঁদুরেরা গর্তে নিয়ে যায়। আর তখন বাগদিরা ইন্দুরগাতি উৎসব পালন করে থাকে। কারণ এই ইঁদুরের গর্ত থেকে তারা ধান সংগ্রহ করে। কিন্তু বর্তমান সময়ে বাগদি সম্প্রদায়ের মধ্যে এই উৎসবে অনেকখানি ভাটা পড়েছে।
সমাজের মূল ধারার বাইরে থাকায় এ জনগোষ্ঠীর জীবনযাত্রায় কোনো উন্নয়ন ঘটেনি। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, চিকিৎসার মতো মৌলিক অধিকার ভোগ করতেই এদের রীতিমতো হিমশিম খেতে হয়। অভিযোগ আছে,এ বাগদিরা কোনো ধরনের সরকারি সাহায্য ভোগ করতে পারে না। এমনকি তাদের ছেলেমেয়েদের বিদ্যালয়েও ভর্তির সুযোগ তেমনভাবে পাননা।
চিকিৎসা বঞ্চিত বাগদি সম্প্রদায়ের কেউ অসুস্থ হলে তার চিকিৎসা চলে শুধুমাত্র নিজস্ব পদ্ধতির ঝাড়ফুঁকে। নোংরা বাস অযোগ্য পরিবেশে তাদের বসবাস। রান্নাবান্নাও চলে এখানে। বাল্য বিবাহ তাদের অন্যতম ঐতিহ্য। অপুষ্ট শিশুগুলোর দুরন্ত দৌড়ঝাঁপ আসলে বুঝতে দেয় না তাদের জীবন করুণ দিকটিকে। এখানকার বয়স্কদের টিকে থাকার বিষয়টি আরও বেদনাদায়ক। এতোকিছুর পরও তাদেরকে ঘিরে নেই কোন সুষ্ঠু পরিকল্পনা।
পর্যাপ্ত না হলেও বর্তমানে স্থানীয় প্রশাসন থেকে তাদের উন্নয়নে নেয়া হচ্ছে কিছু কিছু উদ্যোগ। উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনের পক্ষ থেকেও।
এখনই সময় সঠিক উদ্যোগ ও পদক্ষেপ নেয়ার। তৈরি করতে হবে বাগদিদের নিজের মতো করে বাঁচার পরিবেশ। তাহলেই বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা পাবে বাগদি নামের একটি দেশের ক্ষুদ্র একটি নৃ-গোষ্ঠী।

করোনা ভাইরাস লাইভ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop