তথ্য প্রযুক্তির সময় মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১, সর্বত্র উচ্ছ্বাস

১২-০৫-২০১৮, ১৪:৪৯

সালাহউদ্দীন সুমন

fb tw
অবশেষে পূরণ হলো ১৬ কোটি বাঙালির মহাকাশ ছোঁয়ার স্বপ্ন। বিশ্বের বুকে সৃষ্টি হলো গৌরবের এক ইতিহাস। বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ২টা ১৪ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র স্পেস-এক্স থেকে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট বহনকারী রকেটটি ছুটে গেলো মহাকাশে।
এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে, নিজস্ব স্যাটেলাইটের মালিক হলো লাল সবুজের বাংলাদেশ।
মহাকাশে স্বপ্নের স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১। ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় যোগ হলো আরও একটি অর্জন।
ঘড়ির কাঁটায় বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ২টা ১৪ মিনিটে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোর কেপ কেনেডি সেন্টারের লঞ্চিং প্যাড থেকে স্পেসএক্স-এর ফ্যালকন-৯ ব্লক-৫ রকেটে চেপে মহাকাশে উড়াল দেয় বঙ্গবন্ধু-১। সাড়ে তিন হাজার কেজি ওজনের স্যাটেলাইটটি উড়ালের প্রায় ৩৩ মিনিট পর কক্ষপথে পৌঁছায়। এর মধ্য দিয়ে স্যাটেলাইটের যুগে প্রবেশ করে লাল-সবুজের বাংলাদেশ।
এই ইতিহাসের চাক্ষুষ সাক্ষী হয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশীরাও। দেশের এই অর্জনে আনন্দে অভিভূত তারা।
যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী একজন বাংলাদেশি বলেন, 'আমি অত্যন্ত গর্বিত। এরচেয়ে গর্বের আর কিছু হতে পারে না। কাল একজন ভারতীয়র সঙ্গে আমার দেখা হলো, সে বললো, তোমরা তো আমাদের কাতারে চলে এসেছো। যাদের একসময় বলা হতো তলাবিহীন ঝুড়ি, এখন আমরা তাদের সঙ্গে এক কাতারে চলে এসেছি।'
উৎক্ষেপণের পরপরই প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়সহ বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের সদস্যদের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময় আবেগ-আপ্লুত প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানান প্রতিনিধি দলসহ সংশ্লিষ্টদের।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, উৎক্ষেপণ হওয়া স্যাটেলাইটটির ধাপ এখন দুটি। প্রথম ধাপ ''লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেজ এবং দ্বিতীয় ধাপ স্যাটেলাইট ইন অরবিট। প্রথম ধাপে ১০ দিন ও পরের ধাপে ২০-২১ দিন সময়ের প্রয়োজন। উৎক্ষেপণ স্থান থেকে ৩৬ হাজার কিলোমিটার দূরে যাবে ১৬ কোটি বাঙালির স্যাটেলাইটটি। ৩৫ হাজার ৭শ কিলোমিটার যাওয়ার পর রকেটের স্টেজ-২ খুলে যাবে।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, 'যখন বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছিলো, যখন সেটি মহাকাশের দিকে যাচ্ছিলো তখন মনে হচ্ছিলো, বঙ্গবন্ধু আমাদের আকাশের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন।'
তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, 'চোখের জলে ভাসলাম। মনে হচ্ছিলো বঙ্গবন্ধুর নামটা মহাকাশে বঙ্গবন্ধুকন্যা পাঠাতে সক্ষম হলেন।'
স্যাটেলাইটের নিয়ন্ত্রণ এখন যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও দক্ষিণ কোরিয়ার তিনটি গ্রাউন্ড স্টেশনে রয়েছে। এ তিন স্টেশন থেকে স্যাটেলাইটটি নিয়ন্ত্রণ করে নির্দিষ্ট ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমাংশে নিজস্ব কক্ষপথে স্থাপন করা হবে।
স্যাটেলাইটটির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ পেতে সময় লাগবে প্রায় ২০ দিন। এরপর সম্পূর্ণ চালু হলে এটির নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের গ্রাউন্ড স্টেশনে হস্তান্তর করা হবে।
গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙ্গামাটির বেতবুনিয়ায় দু'টি গ্রাউন্ড স্টেশনের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। নিয়ন্ত্রণের মূল কাজ হবে জয়দেবপুরের স্টেশনেই। আর বেতবুনিয়ার গ্রাউন্ড স্টেশনটি সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

করোনা ভাইরাস লাইভ ›

লাইভ অনুষ্ঠান বুলেটিন ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
সর্বশেষ সংবাদ
অনুসদ্ধান
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop