বাংলার সময় তিস্তা সেচ প্রকল্পের সম্প্রসারণ কি কেবলই অপচয়?

০৮-০৫-২০১৮, ০৫:৫৩

রতন সরকার

fb tw
পানির অনিশ্চয়তা সত্বেও তিস্তা সেচ প্রকল্প সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়েছে। অভিন্ন এই নদীর পানি নিয়ে প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সমস্যা সহসাই দূর হওয়ার সম্ভাবনা না থাকলেও প্রকল্প সম্প্রসারণের বিষয়টিকে রাষ্ট্রের হাজার কোটি টাকা অপচয়ের আয়োজন বলে অভিযোগ উঠেছে।
বিদ্যমান অবকাঠামোয় প্রায় ৮০ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ দিতে প্রয়োজন পাঁচ হাজার তিনশ কিউসেক পানি। বিপরীতে এবছর তিস্তার গড় প্রবাহ ছিলো সাড়ে তিনশ’ কিউসেক। ফলে মাত্র আট হাজার হেক্টরে নামিয়ে আনা হয় সেচ দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা। দুই দশকের বেশি সময় ধরে চাহিদার নূন্যতম পানি মিলছে না। অকার্যকর হয়ে আছে উত্তরের ২২টি উপজেলায় বিস্তৃত অবকাঠামো।
স্থানীয় একজন বলেন, 'পানি কিভাবে পাবো, কোথা থেকে পাবো তার কিছুই বুঝতে পারছি না। নালাগুলোও এখনও কমপ্লিট হয়নি।'
আরেকজন বলেন, 'বর্ষাকালে প্রচুর পানি এমনিতেই থাকে অথচ তখন পানি ছেড়ে দিবে। আর এখন পানির দরকার কিন্তু পানি পাচ্ছি না।'
৯০’র দশকের শুরুর দিকে এই প্রকল্প এ অঞ্চলের ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনে। কিন্তু তারপর থেকে একটু একটু করে কমতে থাকে তিস্তা নদীর পানিপ্রবাহ। যা এক সময় ঠেকে শূন্যের কোঠায়। এই পরিস্থিতিতে প্রকল্পের সম্প্রসারণের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।
রিভারাইন পিপল'র পরিচালক ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেন, 'যে সেচ প্রকল্প এখন শুষ্ক মৌসুমে আমাদের গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে সেই সেচ প্রকল্পের জন্য নতুন করে যদি অর্থ বরাদ্দ করা হয় তাহলে আসলে রাষ্ট্রীয় অর্থের অপচয় হবে।'
আর পানির অনিশ্চয়তার পরও কেন সম্প্রসারণের কাজ হচ্ছে, এই প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি প্রকল্প পরিচালক জোতি প্রসাদ ঘোষ।
তিনি বলেন, 'বর্তমান সরকার চেষ্টা করে যাচ্ছে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারও চেষ্টা করছে। আমরা আশা করি, পানি পাবো।'
প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে পাঁচ লাখ ৪০ হাজার হেক্টরে সেচ কার্যক্রম সম্প্রসারণের জন্য প্রায় দেড় হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবনা জমা দেয় পানি উন্নয়ন বোর্ড। কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়কে তিন ভাগ করে প্রথম ইউনিট বাস্তবায়নে ২২৮ কোটি টাকা অনুমোদন দেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ- একনেক। কিন্তু জমি ও নির্মাণ সামগ্রীর দাম বাড়ার অজুহাতে প্রকল্প এলাকা কমিয়ে মাত্র ২০ কিলোমিটার টারশিয়ারি ক্যানেল নির্মাণে বরাদ্দ বাড়িয়ে নেয়া হয়েছে ৪১৩ কোটি টাকার অনুমোদন।

করোনা ভাইরাস লাইভ

আরও সংবাদ

stay home stay safe
বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
এক্সক্লুসিভ লাইভ
বিপিএল ২০২০

করোনা ভাইরাস লাইভ

আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি আর্কাইভ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop